fbpx

** কোলন ক্যান্সার কী?

মলাশয়ের ক্যান্সার (ইংরেজি: colorectal cancer) হচ্ছে এক ধরনের ক্যান্সার যা দেহের মলাশয়, মলনালী (বৃহদান্ত্রের অংশ) বা অ্যাপেন্ডিক্সে অংশে অনিয়ন্ত্রিত কোষবৃদ্ধির কারণে সৃষ্টি হয়। এটি কোলন ক্যান্সার (colon cancer), বৃহদান্ত্রের ক্যান্সার বা অন্ত্রের ক্যান্সার (bowel cancer) নামেও পরিচিত।

এ ধরনের ক্যান্সারের সাধারণ লক্ষণগুলোর মধ্যে রয়েছে মলনালী দিয়ে রক্ত পড়া ও রক্তশূন্যতা, যা কিছু কিছু ক্ষেত্রে ওজনহীনতা ও অন্ত্রের আচরণগত পরিবর্তনের সাথে সম্পর্কযুক্ত।

** লক্ষণঃ

মলাশয় এবং মলনালীর ক্যান্সার হলে প্রথম পর্যায়ে এর কোনো লক্ষণ বা উপসর্গ নাও থাকতে পারে। তবে এই রোগের প্রথম সতর্কতাসূচক লক্ষণগুলো হতে পারে:

১. মল ত্যাগের সময় কোনো পরিবর্তন (যেমন মলনালী দিয়ে রক্ত পড়া, একনাগাড়ে বেশকিছু দিন কোষ্ঠকাঠিন্যে ভোগা কিংবা ডায়রিয়া কিংবা মলাশয় পুরোপুরি খালি হয়নি বলে অনুভূত হওয়া) লক্ষ্য করা, যে পরিবর্তন দশ দিনেরও বেশি সময় যাবৎ থেকে যায়।

২. মলের ভেতরে বা উপরে রক্তের কালো দাগ কিংবা লম্বা ও সরু আকৃতির মল বা পেন্সিল স্টুল|

৩. কালো, আঠালো মল, যেটা মলনালীতে রক্তক্ষরণের কারণে হতে পারে।

৪. পেটে গ্যাস হবার ব্যথা, বা প্রায়ই পেট ফুলে থাকা, পাকস্থলিতে অস্বস্তি বোধ করা কিংবা তলপেটের বা উদরের পেশির সংকোচন।

৫. অকারণেই হঠাৎ করে অবসাদগ্রস্ততা, দুর্বলতা, ওজন কমে যাওয়া কিংবা আহারের প্রতি অনীহা।

** করণীয়ঃ

১. ধূমপান ত্যাগ করুন: ৪০ বছর বয়স পেরনোর পর প্রায় ১৭ শতাংশ মানুষ এই কোলন ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে থাকেন ধূমপানের খারাপ অভ্যাসের কারণে। আপনি যদি একজন ধূমপায়ী হয়ে থাকেন, তাহলে শরীরের সুস্থতার জন্য আজ থেকেই এই ধূমপানের অভ্যাস পরিত্যাগ করার চেষ্টা শুরু করুন।

২. লাল মাংস খাবেন না: বেশি পরিমাণে লাল মাংস (রেড মিট) খেলে পেটের সমস্যা হয়, বৃহদান্ত্রের চর্বি বৃদ্ধি পায়। যা থেকে হতে পারে কোলন ক্যান্সার। তাই কোলন ক্যান্সার প্রতিরোধে এই লাল মাংস (রেড মিট) খাওয়া কমিয়ে দিন। প্রয়োজনে রেড মিটের পরিবর্তে অন্যান্য প্রোটিন জাতীয় খাবার খাওয়ার অভ্যাস করুন।

৩. পেটের মেদ কমিয়ে আনুন: পেটের অতিরিক্ত মেদ হওয়া কোলন ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি অনেকটাই বাড়িয়ে দেয়। তাই যতটা সম্ভব ডায়েট এবং শরীরচর্চার অভ্যাস করে এই পেটের মেদ ঝরিয়ে ফেলার চেষ্টা করুন।

৪. বেশি করে শাক-সবজি আর ফলমূল খান: আপনার শরীরের হজমকে সঠিক মাত্রায় পরিচালিত করতে সবুজ শাক-সবজি আর ফলমূল খাওয়া অত্যন্ত প্রয়োজন। তাই যতটা সম্ভব সবুজ শাক-সবজি আর ফলমূল খান এবং শরীরকে কোলন ক্যান্সার প্রতিরোধের উপযুক্ত করে তুলুন।